লিটন-সাকিব নৈপুন্যে সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো বাংলাদেশ

  • অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১১:৩৯:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩
  • ১৬৬৬ বার পড়া হয়েছে

ওপেনার লিটন দাসের দ্রুততম হাফ-সেঞ্চুরির পর অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের আগুন বোলিংয়ে এক ম্যাচ বাকী রেখে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো স্বাগতিক বাংলাদেশ।

সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ৭৭ রানে হারিয়েছে আয়ারল্যান্ডকে। নিজেদের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে রান বিবেচনায়  দ্বিতীয় বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছে টাইগাররা। সিরিজ জয় নিশ্চিত করে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল সাকিবের দল।
ব্যাট হাতে বাংলাদেশের পক্ষে ১৮ বলে দ্রুততম হাফ-সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েন লিটন। ৪১ বলে ৮৩ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলেন লিটন। বল হাতে ২২ রানে ৫ উইকেট নেন সাকিব।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে এ ম্যাচেও টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামে স্বাগতিক বাংলাদেশ। টস হবার ১০ মিনিট পর বৃষ্টি শুরু হলে নির্ধারিত সময়ে শুরু হতে পারেনি ম্যাচটি। বৃষ্টির কারনে ১ ঘন্টা ৪০ মিনিট নষ্ট হওয়ায় ম্যাচটি ১৭ ওভারে নির্ধারিত হয়।

ব্যাট হাতে নেমে বাংলাদেশকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার লিটন ও রনি তালুকদার। ৩ দশমিক ৩ ওভারে বাংলাদেশের রান ৫০ স্পর্শ করেন তারা। যা টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম ৫০ রান বাংলাদেশের। ষষ্ঠ ওভারের প্রথম বলে ১ রান নিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের দশম হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন লিটন। এজন্য ১৮ বল খেলেন তিনি। ২০০৭ সালে ২০ বলে করা মোহাম্মদ আশরাফুলের রেকর্ড ভেঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পক্ষে দ্রুততম হাফ-সেঞ্চুরির নজির গড়েন লিটন।

লিটনের রেকর্ড হাফ-সেঞ্চুরিতে পাওয়ার প্লেতে ৮৩ রান পায় বাংলাদেশ। অষ্টম ওভারের প্রথম বলে বাংলাদেশের রান ১শ স্পর্শ করে। দশম ওভারের দ্বিতীয় বলে ভাঙ্গে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। আয়ারল্যান্ডের লেগ স্পিনার বেন হোয়াইটের বলে লং-অনে মার্ক অ্যাডায়ারকে ক্যাচ দেন রনি। ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৩ বলে ৪৪ রান করেন রনি। উদ্বোধনী জুটিতে ৫৬ বলে ১২৪ রান তুলেন লিটন-রনি। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পক্ষে উদ্বোধনী জুটিতে নয়া রেকর্ড এটি। সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৪৩ বলে ৯১ রানের সূচনা করেছিলেন লিটন-রনি।

১২তম ওভারের শেষ বলে থামেন লিটন। হোয়াইটের বলে উইকেটরক্ষক লরকান টাকারকে ক্যাচ দিয়ে ৪১ বল খেলে ১০টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৮৩ রান করে আউট হন লিটন। টি-টোয়েন্টিতে এটিই তার সেরা ইনিংস।দলীয় ১৩৮ রানে লিটন ফেরার পর বাংলাদেশের রানের চাকা দ্রুত ঘুড়িয়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও তাওহিদ হৃদয়। তৃতীয় উইকেটে ২৯ বলে ৬১ রান তুলে বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহ এনে দেন তারা। নির্ধারিত ১৭ ওভারে ৩ উইকেটে ২০২ রান করে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচেই আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ১৯ দশমিক ২ ওভারে ৫ উইকেটে ২০৭ রান করেছিলো বাংলাদেশ।

৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৪ বলে অপরাজিত ৩৮ রান করেন সাকিব। ১৩ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ২৪ রানে আউট হন হৃদয়। সাকিবের সাথে ২ রানে অপরাজিত থাকেন নাজমুল হোসেন শান্ত। আয়ারল্যান্ডের হোয়াইট ২টি ও মার্ক অ্যাডায়ার ১টি উইকেট নেন।১৭ ওভারে ২০৩ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে প্রথম বলেই উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড। পেসার তাসকিনের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে খালি হাতে ফিরেন আইরিশ অধিনায়ক পল স্টার্লিং।

তাসকিনের মত দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে উইকেট শিকার করেন সাকিবও। রনিকে ক্যাচ দিয়ে সাকিবকে প্রথম উইকেট দেন ৬ রান করা লরকান টাকার। নিজের দ্বিতীয় ওভারে জোড়া উইকেট তুলে নেন সাকিব। রস অ্যাডায়ার ও গ্যারেথ ডেলানিকে ৬ রানে আউট করেন সাকিব।নিজের তৃতীয় ওভারেও জোড়া আঘাত হানেন সাকিব। এবার জর্জ ডকরেল ২ ও হ্যারি টেক্টরকে ২২ রানে বিদায় দেন সাকিব। এতে ৩ ওভারে ১৪ রানে ৫ উইকেট পূর্ণ করেন সাকিব। ১১৪ ম্যাচের টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয়বারের মত ইনিংসে ৫ উইকেট নিলেন সাকিব। ২০১৮ সালে মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম পাঁচ উইকেট নিয়েছিলেন সাকিব।
টেক্টরকে শিকার করে আন্তর্জাকি টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের পেসার টিম সাউদিকে সরিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার হন সাকিব। ১১৪ ম্যাচে সাকিবের উইকেট এখন ১৩৬টি, ১০৭ ম্যাচে সাউদি শিকার আছে ১৩৪ উইকেট।

সাকিবের ঘূর্ণিতে ৪৩ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে আয়ারল্যান্ড। এতে দ্রুত গুটিয়ে যাবার শংকায় পড়ে আইরিশরা। কিন্তু ৭ নম্বরে ব্যাট হাতে নামা কার্টিস ক্যাম্ফার ঝড় তুলেন। ২৯ বলে হাফ-সেঞ্চুরি তুলে দলের রান ১শ পার করেন তিনি। ১৫তম ওভারে তাসকিনের বলে আউট হন ক্যাম্ফার। ৩টি করে চার-ছক্কায় ৩০ বলে ৫০ রান করেন তিনি।শেষ পর্যন্ত  ১৭ ওভারে ৯ উইকেটে ১২৫ রানে শেষ হয়  আয়ারল্যান্ড ইনিংস। বাংলাদেশের সাকিব ২২ রানে ৫টি ও তাসকিন ২৮ রানে ৩টি উইকেট নেন।

আগামী ৩১ মার্চ একই ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি।

স্কোর কার্ড :

বাংলাদেশ ইনিংস:

লিটন ক টাকার ব হোয়াইট ৮৩
রনি ক মার্ক অ্যাডায়ার ব হোয়াইট ৪৪
সাকিব অপরাজিত ৩৮
হৃদয় ক রস অ্যাডায়ার ব মার্ক অ্যাডায়ার ২৪
শান্ত অপরাজিত ২
অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-২, ও-৮) ১১
মোট (উইকেট, ওভার)
উইকেট পতন : ১/১২৪ (রনি), ২/১৩৮ (লিটন), ৩/৯৯ (হৃদয়)।
আয়ারল্যান্ড বোলিং :
ডেলানি : ৩-০-২১-০,
মার্ক অ্যাডায়ার : ৩.২-০-৪৮-১ (ও-২),
হুম : ৪-০-৩৫-১ (ও-১),
হ্যান্ড : ১-০-১৯-০,
হোয়াইট : ২-০-১৬-১ (ও-৩),
টেক্টর : ২-০-১৬-১ (ও-৩),
ক্যাম্ফার : ৩-০-৩৭-০ (ও-১)।

আয়ারল্যান্ড ইনিংস

স্টার্লিং ক লিটন ব তাসকিন ০
রস অ্যাডায়ার বোল্ড ব সাকিব ৬
টাকার ক রনি ব সাকিব ৬
টেক্টর বোল্ড ব সাকিব ২২
গ্যারেথ ডেলানি ক লিটন ব সাকিব ৬
ডকরেল এলবিডব্লু ব সাকিব ২
কার্টিস ক্যাম্ফার বোল্ড ব তাসকিন ৫০
মার্ক অ্যাডায়ার ক লিটন ব হাসান ৬
হ্যান্ড এলবিডব্লু ব তাসকিন ২
হুম অপরাজিত ২০
হোয়াইট অপরাজিত ২
অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-১, ও-১) ৩
মোট (৯ উইকেট, ১৭ ওভার) ১২৫
উইকেট পতন : ১/০ (স্টার্লিং), ২/৭ (টাকার), ৩/২৬ (রস), ৪/৩২ (ডেলানি), ৫/৪২ (ডকরেল), ৬/৪৩ (টেক্টর), ৭/৭৪ (মার্ক অ্যাডায়ার), ৮/৮৬ (হ্যান্ড), ৯/১১৬ (ক্যাম্ফার),

বাংলাদেশ বোলিং :

তাসকিন : ৪-০-২৭-৩ (ও-১),
সাকিব : ৪-০-২২-৫।
নাসুম : ৩-০-৩৭-০,
মিরাজ : ১-০-৯-০,
হাসান : ২-০-৬-১ (ও-১),
মুস্তাফিজুর : ৩-০-২১-০ (ও-২),
ফল : বাংলাদেশ ৭৭ রানে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : সাকিব আল হাসান(বাংলাদেশ)।
সিরিজ : তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল  বাংলাদেশ।

ট্যাগস :

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

লিটন-সাকিব নৈপুন্যে সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো বাংলাদেশ

আপডেট সময় : ১১:৩৯:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩

ওপেনার লিটন দাসের দ্রুততম হাফ-সেঞ্চুরির পর অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের আগুন বোলিংয়ে এক ম্যাচ বাকী রেখে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো স্বাগতিক বাংলাদেশ।

সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ৭৭ রানে হারিয়েছে আয়ারল্যান্ডকে। নিজেদের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে রান বিবেচনায়  দ্বিতীয় বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছে টাইগাররা। সিরিজ জয় নিশ্চিত করে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল সাকিবের দল।
ব্যাট হাতে বাংলাদেশের পক্ষে ১৮ বলে দ্রুততম হাফ-সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েন লিটন। ৪১ বলে ৮৩ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলেন লিটন। বল হাতে ২২ রানে ৫ উইকেট নেন সাকিব।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে এ ম্যাচেও টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামে স্বাগতিক বাংলাদেশ। টস হবার ১০ মিনিট পর বৃষ্টি শুরু হলে নির্ধারিত সময়ে শুরু হতে পারেনি ম্যাচটি। বৃষ্টির কারনে ১ ঘন্টা ৪০ মিনিট নষ্ট হওয়ায় ম্যাচটি ১৭ ওভারে নির্ধারিত হয়।

ব্যাট হাতে নেমে বাংলাদেশকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার লিটন ও রনি তালুকদার। ৩ দশমিক ৩ ওভারে বাংলাদেশের রান ৫০ স্পর্শ করেন তারা। যা টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম ৫০ রান বাংলাদেশের। ষষ্ঠ ওভারের প্রথম বলে ১ রান নিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের দশম হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন লিটন। এজন্য ১৮ বল খেলেন তিনি। ২০০৭ সালে ২০ বলে করা মোহাম্মদ আশরাফুলের রেকর্ড ভেঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পক্ষে দ্রুততম হাফ-সেঞ্চুরির নজির গড়েন লিটন।

লিটনের রেকর্ড হাফ-সেঞ্চুরিতে পাওয়ার প্লেতে ৮৩ রান পায় বাংলাদেশ। অষ্টম ওভারের প্রথম বলে বাংলাদেশের রান ১শ স্পর্শ করে। দশম ওভারের দ্বিতীয় বলে ভাঙ্গে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। আয়ারল্যান্ডের লেগ স্পিনার বেন হোয়াইটের বলে লং-অনে মার্ক অ্যাডায়ারকে ক্যাচ দেন রনি। ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৩ বলে ৪৪ রান করেন রনি। উদ্বোধনী জুটিতে ৫৬ বলে ১২৪ রান তুলেন লিটন-রনি। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পক্ষে উদ্বোধনী জুটিতে নয়া রেকর্ড এটি। সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৪৩ বলে ৯১ রানের সূচনা করেছিলেন লিটন-রনি।

১২তম ওভারের শেষ বলে থামেন লিটন। হোয়াইটের বলে উইকেটরক্ষক লরকান টাকারকে ক্যাচ দিয়ে ৪১ বল খেলে ১০টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৮৩ রান করে আউট হন লিটন। টি-টোয়েন্টিতে এটিই তার সেরা ইনিংস।দলীয় ১৩৮ রানে লিটন ফেরার পর বাংলাদেশের রানের চাকা দ্রুত ঘুড়িয়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও তাওহিদ হৃদয়। তৃতীয় উইকেটে ২৯ বলে ৬১ রান তুলে বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহ এনে দেন তারা। নির্ধারিত ১৭ ওভারে ৩ উইকেটে ২০২ রান করে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচেই আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ১৯ দশমিক ২ ওভারে ৫ উইকেটে ২০৭ রান করেছিলো বাংলাদেশ।

৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৪ বলে অপরাজিত ৩৮ রান করেন সাকিব। ১৩ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ২৪ রানে আউট হন হৃদয়। সাকিবের সাথে ২ রানে অপরাজিত থাকেন নাজমুল হোসেন শান্ত। আয়ারল্যান্ডের হোয়াইট ২টি ও মার্ক অ্যাডায়ার ১টি উইকেট নেন।১৭ ওভারে ২০৩ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে প্রথম বলেই উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড। পেসার তাসকিনের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে খালি হাতে ফিরেন আইরিশ অধিনায়ক পল স্টার্লিং।

তাসকিনের মত দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে উইকেট শিকার করেন সাকিবও। রনিকে ক্যাচ দিয়ে সাকিবকে প্রথম উইকেট দেন ৬ রান করা লরকান টাকার। নিজের দ্বিতীয় ওভারে জোড়া উইকেট তুলে নেন সাকিব। রস অ্যাডায়ার ও গ্যারেথ ডেলানিকে ৬ রানে আউট করেন সাকিব।নিজের তৃতীয় ওভারেও জোড়া আঘাত হানেন সাকিব। এবার জর্জ ডকরেল ২ ও হ্যারি টেক্টরকে ২২ রানে বিদায় দেন সাকিব। এতে ৩ ওভারে ১৪ রানে ৫ উইকেট পূর্ণ করেন সাকিব। ১১৪ ম্যাচের টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয়বারের মত ইনিংসে ৫ উইকেট নিলেন সাকিব। ২০১৮ সালে মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম পাঁচ উইকেট নিয়েছিলেন সাকিব।
টেক্টরকে শিকার করে আন্তর্জাকি টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের পেসার টিম সাউদিকে সরিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার হন সাকিব। ১১৪ ম্যাচে সাকিবের উইকেট এখন ১৩৬টি, ১০৭ ম্যাচে সাউদি শিকার আছে ১৩৪ উইকেট।

সাকিবের ঘূর্ণিতে ৪৩ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে আয়ারল্যান্ড। এতে দ্রুত গুটিয়ে যাবার শংকায় পড়ে আইরিশরা। কিন্তু ৭ নম্বরে ব্যাট হাতে নামা কার্টিস ক্যাম্ফার ঝড় তুলেন। ২৯ বলে হাফ-সেঞ্চুরি তুলে দলের রান ১শ পার করেন তিনি। ১৫তম ওভারে তাসকিনের বলে আউট হন ক্যাম্ফার। ৩টি করে চার-ছক্কায় ৩০ বলে ৫০ রান করেন তিনি।শেষ পর্যন্ত  ১৭ ওভারে ৯ উইকেটে ১২৫ রানে শেষ হয়  আয়ারল্যান্ড ইনিংস। বাংলাদেশের সাকিব ২২ রানে ৫টি ও তাসকিন ২৮ রানে ৩টি উইকেট নেন।

আগামী ৩১ মার্চ একই ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি।

স্কোর কার্ড :

বাংলাদেশ ইনিংস:

লিটন ক টাকার ব হোয়াইট ৮৩
রনি ক মার্ক অ্যাডায়ার ব হোয়াইট ৪৪
সাকিব অপরাজিত ৩৮
হৃদয় ক রস অ্যাডায়ার ব মার্ক অ্যাডায়ার ২৪
শান্ত অপরাজিত ২
অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-২, ও-৮) ১১
মোট (উইকেট, ওভার)
উইকেট পতন : ১/১২৪ (রনি), ২/১৩৮ (লিটন), ৩/৯৯ (হৃদয়)।
আয়ারল্যান্ড বোলিং :
ডেলানি : ৩-০-২১-০,
মার্ক অ্যাডায়ার : ৩.২-০-৪৮-১ (ও-২),
হুম : ৪-০-৩৫-১ (ও-১),
হ্যান্ড : ১-০-১৯-০,
হোয়াইট : ২-০-১৬-১ (ও-৩),
টেক্টর : ২-০-১৬-১ (ও-৩),
ক্যাম্ফার : ৩-০-৩৭-০ (ও-১)।

আয়ারল্যান্ড ইনিংস

স্টার্লিং ক লিটন ব তাসকিন ০
রস অ্যাডায়ার বোল্ড ব সাকিব ৬
টাকার ক রনি ব সাকিব ৬
টেক্টর বোল্ড ব সাকিব ২২
গ্যারেথ ডেলানি ক লিটন ব সাকিব ৬
ডকরেল এলবিডব্লু ব সাকিব ২
কার্টিস ক্যাম্ফার বোল্ড ব তাসকিন ৫০
মার্ক অ্যাডায়ার ক লিটন ব হাসান ৬
হ্যান্ড এলবিডব্লু ব তাসকিন ২
হুম অপরাজিত ২০
হোয়াইট অপরাজিত ২
অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-১, ও-১) ৩
মোট (৯ উইকেট, ১৭ ওভার) ১২৫
উইকেট পতন : ১/০ (স্টার্লিং), ২/৭ (টাকার), ৩/২৬ (রস), ৪/৩২ (ডেলানি), ৫/৪২ (ডকরেল), ৬/৪৩ (টেক্টর), ৭/৭৪ (মার্ক অ্যাডায়ার), ৮/৮৬ (হ্যান্ড), ৯/১১৬ (ক্যাম্ফার),

বাংলাদেশ বোলিং :

তাসকিন : ৪-০-২৭-৩ (ও-১),
সাকিব : ৪-০-২২-৫।
নাসুম : ৩-০-৩৭-০,
মিরাজ : ১-০-৯-০,
হাসান : ২-০-৬-১ (ও-১),
মুস্তাফিজুর : ৩-০-২১-০ (ও-২),
ফল : বাংলাদেশ ৭৭ রানে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : সাকিব আল হাসান(বাংলাদেশ)।
সিরিজ : তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল  বাংলাদেশ।