ভাঙচুরের দায়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থী সাময়িক বহিষ্কার

  • অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৮:৪৫:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩
  • ১৬৬৭ বার পড়া হয়েছে

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

ইবির চিকিৎসাকেন্দ্র ভাঙচুরের দায়ে তিন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে । তাঁদের মধ্যে গত বছর দেশীয় অস্ত্রসহ পুলিশের হাতে আটক ও বহিষ্কার হওয়া ছাত্রলীগ কর্মী রেজওয়ান সিদ্দিকী কাব্যও রয়েছেন। তিনি তৃতীয় বর্ষের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী।

গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির সভায় কাব্য ও তাঁর দুই সহযোগীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করেন উপাচার্য অধ্যাপক শেখ আবদুস সালাম।আজ রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এইচএম আলী হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বহিষ্কার হওয়া অপর দুই শিক্ষার্থী হলেন আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের আতিক আরমান ও সালমান আজিজ। গত ১০ জুলাই মধ্যরাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্র ভাংচুর করেন তারা।

প্রত্যক্ষদর্শী কর্মকর্তাদের অভিযোগ, কাব্যসহ তিনজন শিক্ষার্থী মাদকাসক্ত অবস্থায় চিকিৎসাকেন্দ্রে এসে ভাংচুর করেন। পরদিন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. সিরাজুল ইসলাম। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদের সাময়িক বহিষ্কার করা হলো।গত বছর জুলাই মাসে মাদকাসক্ত অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে ছিনতাই ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ক্যাম্পাসের গণমাধ্যম কর্মীদের ওপর হামলার সময় পুলিশের হাতে আটক ও পরে সাময়িক বহিষ্কার হন কাব্যসহ দুই শিক্ষার্থী।

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ভাঙচুরের দায়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থী সাময়িক বহিষ্কার

আপডেট সময় : ০৮:৪৫:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩

ইবির চিকিৎসাকেন্দ্র ভাঙচুরের দায়ে তিন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে । তাঁদের মধ্যে গত বছর দেশীয় অস্ত্রসহ পুলিশের হাতে আটক ও বহিষ্কার হওয়া ছাত্রলীগ কর্মী রেজওয়ান সিদ্দিকী কাব্যও রয়েছেন। তিনি তৃতীয় বর্ষের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী।

গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির সভায় কাব্য ও তাঁর দুই সহযোগীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করেন উপাচার্য অধ্যাপক শেখ আবদুস সালাম।আজ রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এইচএম আলী হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বহিষ্কার হওয়া অপর দুই শিক্ষার্থী হলেন আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের আতিক আরমান ও সালমান আজিজ। গত ১০ জুলাই মধ্যরাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্র ভাংচুর করেন তারা।

প্রত্যক্ষদর্শী কর্মকর্তাদের অভিযোগ, কাব্যসহ তিনজন শিক্ষার্থী মাদকাসক্ত অবস্থায় চিকিৎসাকেন্দ্রে এসে ভাংচুর করেন। পরদিন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. সিরাজুল ইসলাম। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদের সাময়িক বহিষ্কার করা হলো।গত বছর জুলাই মাসে মাদকাসক্ত অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে ছিনতাই ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ক্যাম্পাসের গণমাধ্যম কর্মীদের ওপর হামলার সময় পুলিশের হাতে আটক ও পরে সাময়িক বহিষ্কার হন কাব্যসহ দুই শিক্ষার্থী।