স্বল্প ছুটিতে,গাজীপুরের ছুটি রিসোর্ট

  • আইভি আক্তার
  • আপডেট সময় : ১০:১৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুলাই ২০২৩
  • ১৭৪২ বার পড়া হয়েছে

ছুটি রিসোর্ট গাজীপুর

আপনার হাতে যদি ভ্রমণের জন্য খুব লম্বা সময় না থাকে কিন্তু যদি অবকাশ যাপনের জন্য হাতে কোনো ছোট ছুটি থাকে তাহলে চলে যেতে পারেন ছুটি রিসোর্টে যা গাজীপুরের সুকুন্দি গ্রামে প্রায় ৫০ বিঘা জমি জুড়ে অবস্থিত। গ্রামীণ আবহে অবকাশ যাপনের জন্য বেশ উপযোগী হতে পারে এ রিসোর্টটি।

ছুটি রিসোর্ট এ থাকছে নৌ ভ্রমণের ব্যবস্থা,মাছ ধরার ব্যবস্থা।আগত দর্শনার্থীরা কিছু ফি দিয়ে লেকের ভিতরে ইচ্ছামতো মাছ শিকার করতে পারবেন।
এখানকার হার্বাল গার্ডেন,বিভিন্ন ফল, ফসল, সবজি, ফুলের বাগান আপনাকে বিমোহিত করে তুলবে।এখানে আগত দর্শনার্থীদের নানা ধরনের মৌসুমি ফল বিনামূল্যে
দেওয়া হয়।
গ্রুপে গেলে সেখানে থাকা খেলার মাঠে খেলতে নেমে যেতে পারবেন।আগত দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে রয়েছে ফুটবল, ক্রিকেট, ব্যাডিমিন্টন খেলার মাঠ।
খাওয়ার জন্য রয়েছে রেস্টুরন্ট। সেখানে বাংলা, চাইনিজ, ইন্ডিয়ান, থাই, কন্টিনেন্টাল খাবার পাওয়া যায়।
পিকনিক করার কথা চিন্তা করলে এই জায়গাটি বেছে নিতে পারে পিকনিক স্পট হিসেবে।কারণ এখানে পাবেন বৃক্ষের বনে টানানো তাঁবু,ছনের ঘর, রেগুলার কটেজ, বার্ড হাউস। এসি, নন-এসি ২১টি কটেজ রয়েছে। এখানে দুই ধরনের থাকার ব্যবস্থা আছে। পরিপূর্ণ গ্রামীণ আমেজের প্রাণময় লোকজ বসবাস অথবা ইট কাঠ বালুর কটেজ।
স্বাদ নিতে পারবেন গ্রামীণ পিঠার।আগত অতিথিদের জন্য সকালে পরিবেশন করা হয় চালের নরম রুটি অথবা চিতই পিঠা, সঙ্গে দেশি নানা প্রকার সবজি, ডাল ভুনা ও মুরগির মাংস।
সাথে যদি বাচ্চারা থাকে তবে তাদের জন্য বিশেষভাবে রয়েছে কিডস জোন।এছাড়া সারা দিন পাখির কলরব, সন্ধ্যায় শিয়ালের হাঁক, বিরল প্রজাতির বাঁদুড়, জোনাকি পোকার মিটমিট আলো আর ঝিঁঝিঁ পোকার ডাকে আপনাকে নিয়ে যাবে গ্রামীণ কোনো রাতের আবহে। আর ভরা পূর্ণিমার সময় যদি পেয়ে যান তাহলে রিসোর্টের নিয়ম অনুসারে বৈদ্যুতিক আলো জ্বালানো ব্যতীত হয় না চাঁদনী রাত উপভোগ করতে পারবেন।
এছাড়াও রয়েছে সুইমিং পুল এবং দুটি কনফারেন্স রুম।

যেভাবে যাবেন:

প্রথমে গাজীপুরের চৌরাস্তায় আসতে হবে। সেখান থেকে নিজস্ব পরিবহন বা যাত্রীবাহী বাসে করে গাজীপুর ডিসি অফিসের সামনে (রাজবাড়ী) আসবেন।সেখান থেকে তিন কিলোমিটার পূর্বে আমতলী বাজার থেকে সামান্য উত্তরে সুকুন্দিতে ছুটি রিসোর্টের অবস্থান।

ভাড়া:
ছুটি রিসোর্টে ২৪ ঘণ্টার জন্য কটেজ ভাড়া নিতে ৫-১০ হাজার টাকা লাগবে। কনফারেন্স রুম ভাড়া নিতে ব্যয় করতে হবে ২০-৫০ হাজার টাকা। ১০০-২০০ জনের পিকনিকের জন্য ভাড়া লাগে প্রায় ৯০ হাজার টাকা। সব মূল্যের সাথে ২৫% ভ্যাট ও সার্ভিস চার্জ প্রযোজ্য।

 

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

স্বল্প ছুটিতে,গাজীপুরের ছুটি রিসোর্ট

আপডেট সময় : ১০:১৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুলাই ২০২৩

আপনার হাতে যদি ভ্রমণের জন্য খুব লম্বা সময় না থাকে কিন্তু যদি অবকাশ যাপনের জন্য হাতে কোনো ছোট ছুটি থাকে তাহলে চলে যেতে পারেন ছুটি রিসোর্টে যা গাজীপুরের সুকুন্দি গ্রামে প্রায় ৫০ বিঘা জমি জুড়ে অবস্থিত। গ্রামীণ আবহে অবকাশ যাপনের জন্য বেশ উপযোগী হতে পারে এ রিসোর্টটি।

ছুটি রিসোর্ট এ থাকছে নৌ ভ্রমণের ব্যবস্থা,মাছ ধরার ব্যবস্থা।আগত দর্শনার্থীরা কিছু ফি দিয়ে লেকের ভিতরে ইচ্ছামতো মাছ শিকার করতে পারবেন।
এখানকার হার্বাল গার্ডেন,বিভিন্ন ফল, ফসল, সবজি, ফুলের বাগান আপনাকে বিমোহিত করে তুলবে।এখানে আগত দর্শনার্থীদের নানা ধরনের মৌসুমি ফল বিনামূল্যে
দেওয়া হয়।
গ্রুপে গেলে সেখানে থাকা খেলার মাঠে খেলতে নেমে যেতে পারবেন।আগত দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে রয়েছে ফুটবল, ক্রিকেট, ব্যাডিমিন্টন খেলার মাঠ।
খাওয়ার জন্য রয়েছে রেস্টুরন্ট। সেখানে বাংলা, চাইনিজ, ইন্ডিয়ান, থাই, কন্টিনেন্টাল খাবার পাওয়া যায়।
পিকনিক করার কথা চিন্তা করলে এই জায়গাটি বেছে নিতে পারে পিকনিক স্পট হিসেবে।কারণ এখানে পাবেন বৃক্ষের বনে টানানো তাঁবু,ছনের ঘর, রেগুলার কটেজ, বার্ড হাউস। এসি, নন-এসি ২১টি কটেজ রয়েছে। এখানে দুই ধরনের থাকার ব্যবস্থা আছে। পরিপূর্ণ গ্রামীণ আমেজের প্রাণময় লোকজ বসবাস অথবা ইট কাঠ বালুর কটেজ।
স্বাদ নিতে পারবেন গ্রামীণ পিঠার।আগত অতিথিদের জন্য সকালে পরিবেশন করা হয় চালের নরম রুটি অথবা চিতই পিঠা, সঙ্গে দেশি নানা প্রকার সবজি, ডাল ভুনা ও মুরগির মাংস।
সাথে যদি বাচ্চারা থাকে তবে তাদের জন্য বিশেষভাবে রয়েছে কিডস জোন।এছাড়া সারা দিন পাখির কলরব, সন্ধ্যায় শিয়ালের হাঁক, বিরল প্রজাতির বাঁদুড়, জোনাকি পোকার মিটমিট আলো আর ঝিঁঝিঁ পোকার ডাকে আপনাকে নিয়ে যাবে গ্রামীণ কোনো রাতের আবহে। আর ভরা পূর্ণিমার সময় যদি পেয়ে যান তাহলে রিসোর্টের নিয়ম অনুসারে বৈদ্যুতিক আলো জ্বালানো ব্যতীত হয় না চাঁদনী রাত উপভোগ করতে পারবেন।
এছাড়াও রয়েছে সুইমিং পুল এবং দুটি কনফারেন্স রুম।

যেভাবে যাবেন:

প্রথমে গাজীপুরের চৌরাস্তায় আসতে হবে। সেখান থেকে নিজস্ব পরিবহন বা যাত্রীবাহী বাসে করে গাজীপুর ডিসি অফিসের সামনে (রাজবাড়ী) আসবেন।সেখান থেকে তিন কিলোমিটার পূর্বে আমতলী বাজার থেকে সামান্য উত্তরে সুকুন্দিতে ছুটি রিসোর্টের অবস্থান।

ভাড়া:
ছুটি রিসোর্টে ২৪ ঘণ্টার জন্য কটেজ ভাড়া নিতে ৫-১০ হাজার টাকা লাগবে। কনফারেন্স রুম ভাড়া নিতে ব্যয় করতে হবে ২০-৫০ হাজার টাকা। ১০০-২০০ জনের পিকনিকের জন্য ভাড়া লাগে প্রায় ৯০ হাজার টাকা। সব মূল্যের সাথে ২৫% ভ্যাট ও সার্ভিস চার্জ প্রযোজ্য।